করোনা ও মানসিক স্বাস্থ্য


বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রকাশিত তথ্য অনুসারে প্রত্যেক বছর আট লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়ে থাকে আত্মহত্যার মাধ্যমে । যার অধিকাংশই উপযুক্ত চিকিৎসা ও সামাজিক সহায়তার মাধ্যমে রোধ করা সম্ভবপর ছিল । প্রতি চল্লিশ সেকেন্ডে সে সকল মানুষ আত্মহত্যা করছেন তাদেরকেও বাঁচানো সম্ভব ।

শিশু ও তরুণদের যে সমস্ত কারণে মৃত্যু হয়ে থাকে তার মধ্যে দ্বিতীয় প্রধান কারণ হচ্ছে তাদের আত্মঘাতী হওয়া । আর আত্মহত্যার মুখ্য কারণ হচ্ছে মানসিক অসুস্থতা ।
যে মারাত্মক মানসিক অসুস্থতাটি বেশি দেখা যায় সেটি হচ্ছে, ডিপ্রেশন । বর্তমানে পৃথিবীতে প্রায় ২৭ কোটি মানুষ ডিপ্রেশনের শিকার । ২৭ কোটি মানুষ । ডিপ্রেশন ছোঁয়াচে নয় বলেই শুধু মহামারীর তকমা পায়নি হয়ত ।

ডিপ্রেশন যে একটা মারাত্মক ব্যাধি - এ বিষয়ে সচেতনতা রয়েছে আমাদের দেশের খুব কম সংখ্যক মানুষেরই । ডিপ্রেশন বলতে এরা বোঝেন মন খারাপ । এমনকি নামজাদা কবিরাও নিজের কবিতার পঙক্তিতে লেখেন, "ডিপ্রেশনের বাংলা জানি মনখারাপ" । আর এমন অনেকই আছেন যারা জানেন ডিপ্রেশন ঠিক কতটা মারাত্মক ও দুঃসহ, তবু বলেন, ওসব কিস্যু না । এটা করলে সেরে যাবে, ওটা করলেই সেরে যাবে । সত্যি বুঝিনা নিজের অনভিজ্ঞতার ঝুলি থেকে এইসব টক্সিক কথা না ঝাড়লে যে কি এমন মহাভারত অসুদ্ধ হয় । এইকরম কথা যে অসুস্থতাটা আরও বাড়িয়ে দেয় সেটা এরা কিছুতেই বোঝেনা ।

মোট আত্মহত্যার ৭৬ % হয়ে থাকে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোতে । ভারতবর্ষ এর আদর্শ উদাহরণ । আমাদের দেশে এক লক্ষ পঁয়ত্রিশ হাজার মানুষ প্রতি বছর আত্মহত্যা করেন, অর্থাৎ মোট সংখ্যার ১৭ শতাংশই ভারতে । এর একটা বড় অংশ সেইসব মহিলারা যারা পারিবারিক হিংসার শিকার । সেইসব কৃষকরাও আছেন যারা রাষ্ট্রের অবহেলার ফলে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন ।

কিন্তু এছাড়াও একটা বড় অংশের মানুষ রয়েছেন যারা নানান মানসিক ব্যাধিতে ভোগেন, অবশেষে শেষ পরিণতি হিসেবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরেন, কিন্তু চিকিৎসার পথে যান না । আসলে অনেকেই বুঝতে পারেননা যে তিনি কোন মানসিক ব্যাধিতে ভুগছেন । আর নিজে বুঝলেও কাছের মানুষদের অবহেলার কারণে সেই অসুস্থতা আর কোনদিনই সারে না । ফুরিয়ে যায় জীবন । উচ্চআয়ের দেশগুলোতে বেশি, ফলে আত্মহত্যার হার কম । তাছাড়া প্রাণঘাতী কীটনাশক নিষিদ্ধ করার ফলেও অনেকটা ফারাক এসেছে বলে বিশেষজ্ঞদের ধারনা ।

তাই আসুন এবার জেনে নিই ডিপ্রেশন নামের মানসিক ব্যাধিটির কিছু লক্ষণ ও প্রতিকার । তার করার আগে বলে রাখি, কারো ডিপ্রেশন কিনা তা ব্লগপোষ্ট পড়ে নির্ণয় করা সম্ভব নয় । নির্ণয় একমাত্র মেন্টাল হেলথ প্রফেশনালরাই করতে পারেন, উপযুক্ত পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে । বা আমি যা বলতে চলেছি সেগুলোই যে ডিপ্রেশনের একমাত্র লক্ষণ ও প্রতিকার তা একদমই নয় । শুধু একটা প্রাথমিক ধারনা হিসেবেই জানবেন । বাকিটা সাইকিয়াত্রিস্ট বা সাইকলজিস্টরাই বলতে পারেন ।

১। অবিরত দুঃখের অনুভূতি, দুশ্চিন্তা, সবকিছুই অর্থহীন মনে হওয়া ।

২। আশাহীন হয়ে যাওয়া । ডিপ্রেশন গ্রস্ত ব্যাক্তিরা কিছুতেই কোন আশা খুঁজে পাননা ।

৩। একটা অপরাধবোধ কাজ করে, নিজেকে মূল্যহীন অথবা অসহায় ভাবতে শুরু করেন ডিপ্রেশনের রোগীরা ।

৪। একসময় যা ভাল লাগতো তাও আর ভাল লাগেনা ।

৫। মনোযোগ কমে যায়, স্মৃতিশক্তিও । সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগেন ।

৬। ঘুম হয় কমে যাবে, নাহয় বেড়ে যাবে ।

৭। মেজাজ চিরচিরে হয়ে যায় ।

আট । সব থেকে মারাত্মক লক্ষণ হচ্ছে আত্মহত্যার ভাবনা মাথায় আসবে, আত্মনিধনের চেষ্টাও করতে পারেন ।

এগুলো হচ্ছে ডিপ্রেশন নামক দানবীয় অসুখের লক্ষণ । এবার প্রশ্ন হচ্ছে কেন হয় ? ডিপ্রেশনের একটা নির্দিষ্ট কারণ নির্ণয় করা সম্ভব নয় । অনেকসময় অনেকগুলো কারণের জটিল সমন্বয়েও ডিপ্রেশন হয়ে থাকে ।
পরিজনদের সহায়তা ও সঠিক চিকিৎসাই ডিপ্রেশন থেকে রেহাই পাবার উপায় ।

আপনি যদি আপনার কাছের কোন মানুষের মধ্যে এরূপ আচরণ দেখেন, তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের সাহায্য নেবেন । নিজে নিজে থেরাপি দেয়ার চেষ্টা করবেন না, কখনো বলবেন না, ও কিচ্ছু নয়, ডিপ্রেশন কোন রোগই নয়, এটা করলে সেরে যাবে, ওটা করলে সেরে যাবে... প্লিজ এরকম ওস্তাদি করার অর্থ হচ্ছে তাকে মৃত্যুর দিকে আরও একটু স্বেচ্ছায় ঠেলে দেয়া ।

করোনা মহামারী রুখতে ভারতবর্ষ ও সারা বিশ্ব জুড়েই যে লকডাউনের পথ বেছে নেয়া হয়েছে তার ফলে করোনাকে অনেকটা রুখা গেলেও অর্থনৈতিক মন্দা আসবেই । এমনিতেই ভারত বর্ষের অধিকাংশ মানুষের আয় দশ হাজারের কম, ফলে এই অর্থনৈতিক মন্দা জনজীবনে ভয়াবহ প্রভাব ফেলতে চলেছে । মানসিক অসুস্থদের আরও অসুস্থ হয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে, হতে পারে করোনা সংক্রমণের চেয়ে করোনা কর্তৃক সৃষ্ট মানসিক চাপই অধিক মানুষের মৃত্যুর কারণ হবে । জর্মনির হেশেঁ প্রদেশের অর্থমন্ত্রী টমাস শেফার গত ২৮ মার্চ ২০২০ খ্রিস্টাব্দে আত্মহত্যা করেন করোনা সংক্রমণের ফলে হওয়া অর্থনৈতিক বিদ্ধস্ততার রূপ দেখে হতাশ হয়ে ।

অর্থনৈতিক মন্দার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের মধ্যে একটা বছর পিছিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে । ফলে মাতাপিতারা নিজের সন্তানদের পাশে থাকবেন । বিচলিত হতে দেবেননা । মানসিক অসুস্থতাকে উপেক্ষা না করে আর দশটা অসুখের মতই প্রতিরোধ করুন ও অন্যদের করতে সাহায্য করুন ।

Post a comment

0 Comments